কন্টেন্ট রাইটিং। আমি ও আমার চিন্তা ভাবনা!

ফ্রীল্যান্সিং আউটসোর্সিং আমাদের দেশে বহুল পরিচিত একটি শব্দ। তরুনদের বড় একটি অংশই ফ্রীল্যান্সিং আর আউটসোর্সিং এর সাথে জড়িত এবং অনেকেই প্রতিমাসে ভালো পরিমান আয় করে থাকেন। কন্টেন্ট রাইটিং হচ্ছে ফ্রীল্যান্সিং এর জনপ্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগ যা থেকে আমাদের দেশের অনেক ফ্রীল্যান্স লেখক ভালো পরিমান আয় করছে।

যেহেতু আর্ন্তজাতিক বাজারে বাংলা কন্টেন্ট এর চাহিদা নেই বললেই চলে তাই আর্ন্তজাতিক মার্কেটপ্লেস থেকে আপনাকে অবশ্যই ইংরেজী কন্টেন্ট লিখে আয় করতে হবে। আর যেহেতু ইংরেজী আমাদের মাতৃভাষা না সেহেতু একজন সফল কন্টেন্ট রাইটার হতে হলে আপনাকে অনেকগুলো বিষয়ের উপরে নজর দিতে হবে।কন্টেন্ট রাইটিং! আমি ও আমার চিন্তা ভাবনা।

আমি মোটামুটি গত চার বছর থেকে ইংরেজী কন্টেন্ট রাইটিং এর সাথে যুক্ত আছি। এই চার বছরে অনেকেই আমার কাছে এসেছেন কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে জানার জন্য এবং শিখার জন্য। এদেরকে আমি ২ শ্রেনীতে ভাগ করতে পারি;

১, কম আত্মবিশ্বাসী আর ২, বেশি আত্মবিশ্বাসী।

অর্থাৎ বেশিরভাগ লোক দেখেছি যারা ইংরেজীকে ভয় পাওয়ার কারনে কন্টেন্ট রাইটিং কে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে পারে নি (বলা বাহুল্য এদের শতকরা ৮০ ভাগই ইউনিভার্সিটি লেভেলের অথবা গ্রাজুয়েট) আর কিছু লোক পেয়েছি যারা কন্টেন্ট রাইটিং কে কোন কাজই মনে করেন না (হয়তোবা এনারা মনে করছেন কন্টেন্ট রাইটিং মানে গরু রচনা লিখা 😀 )। এই ২ শ্রেনীর যারাই আমার কাছে আসছে তাদের কেউই প্রফেশনাল কন্টেন্ট রাইটার হতে পারে নাই 🙁 । তবে কয়েক জন লোক পেয়েছি এর মাঝামাঝি, যারা চেষ্টা করছে, কন্টেন্ট রাইটিং নিয়ে পড়াশুনা করছে আর প্র্যাকটিস করেছে এবং এরাই সফল হয়েছে।

একজন কন্টেন্ট রাইটার কত টাকা আয় করতে পারেন?

একজন কন্টেন্ট রাইটার কত টাকা আয় করতে পারেন সেটা নির্ভর করে অনেকগুলো জিনিসের উপরে যেমন তিনি কি বিষয় নিয়ে লিখছেন, তার দক্ষতা কেমন, তিনি কোন মার্কেটপ্লেসে কাজ করছেন ইত্যাদি। সাধারনত ব্লগ কন্টেন্ট, ওয়েব কন্টেন্ট এবং প্রোডাক্ট রিভিউ কন্টেন্ট এর কাজ মার্কেটপ্লেসে সহজেই পাওয়ার যায়। এই কন্টেন্ট এর পারিশ্রমিক নির্ভর করবে আপনার দক্ষতার উপরে, যেমন ধরুন কেউ ব্লগ কন্টেন্ট প্রতি ১০০ ওয়ার্ড লিখে পায় মাত্র ৫০ সেন্ট (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩৫-৩৮ টাকার মত) আবার কেউ ১০০ ওয়ার্ড লিখে পায় ২ ডলার (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১৪০-১৪৫ টাকার মত)। যার দক্ষতা যেইরকম এবং এইটা আমি শুধু আমাদের বাংলাদেশি রাইটারদের কথা বলছি, অনেক নেটিভ রাইটার (যাদের মাতৃভাষা ইংরেজী) আছে যারা ১০০ ওয়ার্ড এর জন্য ৫ ডলারেরও বেশী পায়।

অন্যদিকে আপনি কোন ক্যাটাগরীর কন্টেন্ট লিখছেন সেটার উপরেও নির্ভর করবে আপনি কি পরিমান পারশ্রমিক পাবেন। যেমন ধরুন ব্লগ কন্টেন্ট, কপিরাইটিং কন্টেন্ট আর ডকুমেন্ট টাইপ কন্টেন্ট এর পারিশ্রমিকের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। আর আপনার যদি দক্ষতা আর অভিজ্ঞতা না থাকে তাহলে আপনি সব ধরনের কন্টেন্ট লিখতেও পারবেন না। এই জন্য আপনাকে যে কোন এক ক্যাটাগরীর কন্টেন্ট এর উপরে নজর দিতে হবে হতে পারে সেটা ব্লগ কন্টেন্ট, প্রোডাক্ট রিভিউ কন্টেন্ট, ডকুমেন্ট টাইপ কন্টেন্ট, থিসিস পেপার কন্টেন্ট যা যেকোন কিছু। মনে রাখবেন সেই ক্যাটাগরিতেই কাজ করবেন যেটা আপনি ভালো বুঝেন আর আপনার ভালো লাগে। এতে করে দিন দিন আপনার যেমন দক্ষতা বাড়বে তেমনি আপনি খুব সহজেই কাজও পেয়ে যাবেন।

কিভাবে কন্টেন্ট রাইটিং থেকে আয় করবেন?

আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিং এ নতুন হয়ে থাকেন, আপনার যদি আর কোন কাজ না জানা থাকে তাহলে আপনি মার্কেটপ্লেসে কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস যেমন আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সার, ইল্যান্স, ফিভার, হায়াররাইটার, টেক্সটব্রোকার, রাইটারএক্সেস, স্কাইওয়ার্ড, কনস্টেন্ট কন্টেন্ট, আইরাইটার, কপিপ্রেস, টেক্সটমাষ্টার, স্ক্রিপ্টেড, কপিব্লগার ইত্যাদি। এইসব মার্কেটপ্লেসে আপনি বিভিন্ন ধরনের কন্টেন্ট রাইটিং এর কাজ পাবেন এবং মার্কেটপ্লেসে ভেদে আপনার পারিশ্রমিকও বিভিন্ন রকম হবে।

আপনি কোন মার্কেটপ্লেসে কাজ করেন???

কোথাও না!

তাহলে আপনি আয় করেন কিভাবে???

আপনি কোন মার্কেটপ্লেস বা কোথায় কাজ করেন, এইটা আমার জন্য একটা কমন প্রশ্ন। প্রায় সবাই এই প্রশ্নটা করে থাকে এবং এইটা সংগত কিন্তু যখন আমি উত্তর দেই কোথাও না তখন সবাই ভাবে আমি তাদের সাথে মজা করতেছি আবার কেউ ভাবে আমি যদি কোথাও কাজ ই না করি তাহলে আয় করি কিভাবে।

যাই হোক, আমি আসলে প্রথম থেকেই মার্কেটপ্লেসে কাজ করার বিরুদ্ধে ছিলাম (এইটা সম্পূর্ণ আমার ব্যাক্তিগত) কারণ আমি নিজে কিছু করতে চেয়েছি। যেহেতু আমি ব্লগিং, এস.ই.ও. আর অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে টুকটাক জানি তাই আমি আমার নিজের ব্লগের জন্য ব্লগ কন্টেন্ট আর অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ব্লগের জন্য প্রোডাক্ট রিভিউ কন্টেন্ট লিখি।

আমি কেন মার্কেটপ্লেসে কাজ করি না

যেহেতু আমি ব্লগিং আর অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করি সেহেতু মার্কেটপ্লেসে কাজ করার মত বাড়তি সময় পাই না। আর এর থেকে বড় কথা হচ্ছে আমি লংটাইম আয় এর চিন্তা করি। যেমন ধরুন, আমি যদি মার্কেটপ্লেসে ১০০০ ওয়ার্ড এর একটা প্রোডাক্ট রিভিউ কন্টেন্ট লিখি তাহলে বায়ার হয়তো আমাকে ১০-১৫ ডলার পে করবে যা আমি একবারই পাবো। কিন্তু আমি যখন আমার নিজের ব্লগের জন্য একটা প্রোডাক্ট রিভিউ কন্টেন্ট লিখি সেটা পাবলিশ করার পর যত বার ঐ রিভিউ থেকে ভিজিটর আমার অ্যাফিলিয়েট লিঙ্ক ব্যবহার করে প্রোডাক্টটা কিনবে ততবার আমি কমিশন পাবো J। আলহামদুলিল্লাহ, আমার এমনও রেকর্ড আছে যে আমি একটা প্রোডাক্ট রিভিউ লিখে সেটা ৫০ বারেরও বেশী সেল পাইছি এবং ভবিষ্যতে আরো পাবো ইনশা-আল্লাহ। প্রতিবার সেলে যদি আমি মিনিমাম ৫ ডলারও পাই এইবার আপনি হিসেব করে দেখেন আমি একটা কন্টেন্ট এর জন্য কত পারিশ্রমিক পেয়েছি 😉 ।

(তবে হ্যাঁ, আপনি হয়তো এইভাবে আয় করতে পারবেন না কারন তাহলে আপনাকেও আগে ব্লগিং, এস.ই.ও., অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ইত্যাদি শিখতে হবে, আর আমার এই আয়কে আপনি শুধু কন্টেন্ট রাইটিং এর জন্য ধরতে পারেন না কারন আমাকে এস.ই.ও. এবং অন্যান্য কাজও করতে হয়েছে। কিন্তু সব কিছু হিসেবে করে দেখেছি যে আমি মার্কেটপ্লেসে কাজ না করে আমার নিজের ব্লগের জন্য কাজ করাই ভালো। আর এর থেকেও বড় কথা হচ্ছে বায়ারের প্যারা ভালো লাগে না 😛 )

আপনি কেন মার্কেটপ্লেসে কাজ করবেন?

যেহেতু আপনি নতুন শুরু করছেন বা করবেন আর আপনার হয়তবা নিজের ব্লগ বা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার মত সামর্থ্য নেই তাই আপনাকে শুরুতে মার্কেটপ্লেসেই কাজ করতে হবে। আর মার্কেটপ্লেসে কাজ করার আরো অনেক ভালো দিক রয়েছে যেমন ধরুন আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরীতে আর বিভিন্ন টপিক নিয়ে লেখার সুযোগ পাবেন। এতে করে আপনার দক্ষতা আর অভিজ্ঞতা বাড়বে। আর যেহেতু বায়াররা সব সময় লেটেষ্ট ফরম্যাট এর কন্টেন্ট চায় সেহেতু আপনিও সব সময় নতুন নতুন ফরম্যাটে কাজ করার সুযোগ পাবেন। বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস যাচাই করতে পারবেন এবং যেখানে পারিশ্রমিক বেশি সেখানে কাজ করতে পারবেন।

আজ এই পর্যন্তই, আশা করি খুব শীঘ্রই কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে আরো নতুন লেখা নিয়ে হাজির হবো। ততদিন ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

আর হ্যাঁ, কোন প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই নিচের কমেন্ট বক্সে করে ফেলবেন আর আশা করি লেখাটি ভালো লাগলে আপনার ফেসবুক আর টুইটার টাইমলাইনে দেখতে পাবো 🙂 ।

Comments (0)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

CommentLuv badge